1. [email protected] : Mohiuddin Lasker : Mohiuddin Lasker
  2. [email protected] : Prodip Kumar Sarkar : Prodip Kumar Sarkar
  • E-paper
  • English Version
  • সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২২ অপরাহ্ন

ছাতকের তাতিকোনায় হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ হিন্দু লোকজন…

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ মার্চ, ২০২১
  • ৪৬ বার পঠিত

ছাতকের তাতিকোনায় হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ হিন্দু লোকজন পিবিআই’র এসপির সাথে সাক্ষাত

বিশেষ প্রতিনিধিঃ গত বছরের ১০ মে ছাতকের তাতিকোনা এলাকার একটি মন্দির ও হিন্দু বাড়িতে হামলার ঘটনায় মামলা তদন্তকারী সংস্থা সিলেট পিবিআই কার্যালয়ের পুলিশ সুপারের সাথে সাক্ষাত করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন। ২০ মার্চ সিলেট পিবিআই’র এসপি খালেদুজ্জামানের সাথে সাক্ষাত করে ঘটনার বিচার প্রার্থনা করেন তাতিকোনা এলাকার বাসিন্দা বাবুল চৌধুরী, কালীকান্ত দাস, বাবুল দাস, শিক্ষক প্রনব দাস মিটু, শিক্ষক গোবিন্দ মোহন সরকার, রাজু চক্রবর্ত্তী, সুশান্ত দাস, মোহন দাস, মামলার বাদী তাপস দাস সহ ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন। ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন জানান, ঘটনার প্রায় এক বছর গড়িয়ে গেলও ঘটনাকারীরা জামিন নিয়ে দিব্যি ঘুরাফেরা করছে। বর্তমানে তারা আতংকের মাঝে দিনানিপাত করছেন। উল্ল্যেখ্য গত বছরের ১০ মে রাতে ফেইসবুকের একটি তুচ্ছ ষ্ট্যাটাস নিয়ে শহরের তাতিকোনা এলাকায় একটি মন্দির, মুক্তিযোদ্ধা স্বরাজ দাসের বসতঘর সহ হিন্দু বাড়ি-ঘরে হামলা করে প্রতিপক্ষরা। অতর্কিত হামলায় নারীসহ আহত হয় ৮ ব্যক্তি। হামলাকারীরা ৭-৮ জন নারীকে শারীরীকভাবেও লাঞ্চিত করে। ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী পুলিশ সুপার, ছাতক সার্কেল, ছাতক থানার ওসি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াহিদ মজনু ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নির্যাতিত পরিবারদের শান্তনা দেন। এ ঘটনায় ১১ মে তাতিকোনা এলাকার বাসিন্দা রবীন্দ্র দাসের পুত্র তাপস দাস বাদী হয়ে একই এলাকার সাহেদ আলী সরকারের পুত্র আরিফ আহমদকে প্রদান করে ২২ জনের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় একটি মামলা(নং-৯) দায়ের করেন। ১১ মে দুপুরে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে হামলায় ক্ষতিগ্রস্থদের শান্তনা দেন তিনি। বিষয়টি আইনীভাবে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথাও বলেন তিনি। ভুক্তভোগীরা জানান, এ ঘটনার সূত্র ধরে আরো একাধিক হামলা ঘটনা ঘটিয়েছে প্রতিপক্ষরা। ১৩ জুন পিপলু দাস এবং ৩১ আগষ্ট নুপুর দাসের উপর পরিকল্পিত হামলা করে তারা। এসব ঘটনায় পিপলু দাস বাদী হয়ে সিআর মামলা (নং-১৯১/২০) এবং নুপুর দাস বাদী হয়ে সিআর মামলা(নং-৮২/২০) দায়ের করে। কিন্তু আসামীরা সহজেই জামিনে মুক্ত হয়ে এখন এলাকায় অবস্থান করছে। পক্ষান্তরে এ ঘটনায় সু-বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি হামলায় আহতরা এখন প্রতিপক্ষের সাজানো মিথ্যা মামলায় হয়রানী হচ্ছে। ঘটনাটি সুষ্ট তদন্তের মাধ্যমে ঘটনাকারীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পিবিআই এসপি খালেদুজ্জামানের সদয় দৃষ্টি কামনা করেছেন ভুক্তভোগীরা।

নিউজ সোর্সঃ

ছাতকের তাতিকোনায় হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ হিন্দু লোকজন পিবিআই’র এসপির সাথে সাক্ষাত

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..